ছেলেকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে সোপর্দ করলেন মা

Img

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় শাহিনুর ইসলাম শাহিন (২৮) নামে মাদকাসক্ত এক ছেলেকে আটক করে ভ্রাম্যমাণ আদালতের কাছে তুলে দিলেন মা। বুধবার রাতে স্থানীয়দের সহায়তায় ওই ছেলেকে আটক করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. মাসুদুল হক রয়েল তাকে তল্লাশি করে পকেট থেকে গাঁজা উদ্ধার করেন। পরে তাকে এক বছর ১০ মাসের কারাদণ্ড এবং নগদ ৩০০ টাকা জরিমানা করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্র জানায়, বুধবার রাতে মাদকাসক্ত শাহিনুর মাদক কেনার টাকা না পেয়ে বাড়িতে ভাঙচুর শুরু করেন। এ সময় তার মা বাধা দিলে মারপিট করেন। এর আগেও একাধিকবার এমন কাণ্ড ঘটিয়েছেন শাহিনুর। খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান লিটন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহাগ চন্দ্র সাহাকে বিষয়টি জানান। তিনি সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাসুদুল হক রয়েলকে ঘটনাস্থলে গিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার পরামর্শ দেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে পুলিশ, জনপ্রতিনিধিসহ স্থানীয়রা উপস্থিত ছিলেন।

শালবাহান ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান লিটন বলেন, শাহিন প্রায় এমন কাণ্ড ঘটান। তার মা আমাদের বারবার নালিশ করলে স্থানীয়ভাবে একাধিকবার সালিশ বৈঠক করেছি। কিন্তু কিছুদিন না যেতেই আবার একই ধরনের কাজ করে শাহিনুর। সর্বশেষ মাদকাসক্ত ছেলের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতে সোপর্দ করেন মা।

পূর্ববর্তী সংবাদ

আশুলিয়ায় ২০ লাখ টাকার নকল টাইগার-স্পীড জব্দ

সাভারের আশুলিয়ায় অভিযান চালিয়ে ২০ লাখ টাকার নকল টাইগার, স্পীডসহ বিপুল পরিমাণ কার্বনেটেড বেভারেজ পণ্য জব্দ করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। এছাড়া কারখানাটি সিলগালা করার পাশাপাশি এর মালিক পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাতে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশনের (বিএসটিআই) সম্পাদক মঈনুদ্দীন মিয়া এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

এর আগে দিনভর আশুলিয়ার আউকপাড়া দশদাহী এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে বিএসটিআই এর ভ্রাম্যমাণ আদালত।
 
এসময় প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।   

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আশুলিয়ার আউকপাড়া এলাকায় বিএসটিআই লাইসেন্স ছাড়াই অবৈধভাবে মানচিহ্ন ব্যবহার করে নকল পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাত করে আসছিল গ্রুপ জি-৫০ বেভারেজ লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠান। পরে আজ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ওই প্রতিষ্ঠানের ২০ লাখ টাকার কার্বনেটেড বেভারেজ পণ্য জব্দ করা হয়। 

মূলত রয়েল টাইগার ও স্পিড এর আদলে রিয়েল টাইগার, ব্রেক আপ, রয়্যাল টাইগার, স্পিডি, ডেল্টা অরেঞ্জ নিম্নমানের পানীয় উৎপাদন করে আসছিল প্রতিষ্ঠানটি।  কিন্তু প্রতিষ্ঠানের মালিক পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে বিএসটিআই কর্মকর্তা সাইদুর রহমান বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। পাশাপাশি কারখানাটি সীলগালাও করা হয়। 

বিএসটিআই’র এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রাশিদা আক্তার ভবিষ্যতে তাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার