চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে গরুর বিট খাটালে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে বিজিবির হাতে আটক হয়েছেন উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রিজভী আলম রানাসহ ১০ জন। মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) সকালে উপজেলার মাসুদপুর সীমান্তের একটি বিট খাটাল থেকে তাদের আটক করা হয়। পরে বিকেলে তাদের শিবগঞ্জ থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় সন্ধ্যায় বিট খাটাল মালিক রুবেল আলী বাদী হয়ে আটকদের নামে মামলা করেছেন।

সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রিজভী আলম রানার নেতৃত্বে ১০/১৫ জন যুবক মাসুদপুর গরুর বিটে চাঁদাবাজি করতে যায়। এ সময় বিট মালিক চাঁদা দিতে রাজি না হলে তারা ভয়ভীতি দেখায়। পরে বিষয়টি মাসুদপুর বিজিবি ক্যাম্পে জানানো হলে বিজিবি সদস্যরা রানাসহ ১০ জনকে আটক করে।

খাটাল মালিক রুবেল আলী জানান, বিটে কার্যক্রম চলা অবস্থায় ছাত্রলীগের সভাপতি রিজভী আলম রানার নেতৃত্বে ১০/১৫ জন চাঁদাবাজি করতে আসে। বিষয়টি বিজিবিকে জানালে তারা রানাসহ ১০ জনকে আটক করে। এ ঘটনায় আরও ৪/৫ জন পলাতক রয়েছে। পলাতকরা তার বিট থেকে ৬০ থেকে ৬৫ লাখ টাকা ছিনতাই করে পালিয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

মাসুদপুর বিওপি ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার শাহাদাৎ হোসেন জানান, রিজভী আলম রানার নেতৃত্বে ১০/১৫ জন মাসুদপুর বিটে চাঁদাবাজি করতে আসার খবর পেয়ে টহল দল পাঠানো হয়। সেখান থেকে রিজভী আলম রানাসহ ১০ জনকে আটক করা হয়। পরে বিকেল ৫টার দিকে তাদের শিবগঞ্জ থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আরিফুর রেজা ইমন জানান, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রিজভী আলম রানার ঘটনাটি তিনি শুনেছেন। সাংগঠনিকভাবে জেলা কমিটি বিষয়টি তদন্ত করবে। যদি রানা দোষী প্রমাণিত হয়, তাহলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শিবগঞ্জ থানার ওসি শিকদার মো. মশিউর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।