চট্টগ্রামে আরো ৬৮ জনের করোনা শনাক্ত

বিষয়: করোনাভাইরাস
Img

চট্টগ্রামে নতুন করে আরো ৬৮ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। তিনটি ল্যাবে ৪৬৪টি এবং কক্সবাজারের ল্যাবে ২১টিসহ মোট ৪৮৫টি নমুনা পরীক্ষায় চট্টগ্রামের এই ৬৮ জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে।

এর মধ্যে মহানগরে শনাক্ত হয়েছেন ৫৮ জন। আর ১০ জন উপজেলা পর্যায়ে। মহানগরে শনাক্তদের মাঝে একজন চিকিৎসকসহ ৫ পুলিশ সদস্যও আছেন। ওই চিকিৎসক চমেক হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন। চাকরির মেয়াদ শেষে অবসরে যান।

এছাড়া গতকাল করোনা আক্রান্ত দুজনের মৃত্যু হয়েছে চট্টগ্রামে। এর মধ্যে আক্রান্ত হয়ে জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে একজনের মৃত্যু হয়। আরেকজন আগেই মারা গেছেন। নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে গতকাল রাতে মৃত ব্যক্তির শরীরে করোনা পজিটিভ ছিল বলে জানা গেছে।

সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে মৃত্যুর পর করোনা পজিটিভ রোগীর বিস্তারিত তথ্য জানাতে পারেন নি সিভিল সার্জন। শনিবার সকালে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে বলে জানান তিনি। চট্টগ্রামে মৃত্যু বেড়ে ৩২ জনে দাঁড়িয়েছে।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে আইসিইউতে মারা যাওয়া সলিল বিশ্বাস (৭০) নামের ওই রোগীর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের এক চিকিৎসকের বাবা। তিনি নগরীর উত্তর কাট্টলি এলাকার বাসিন্দা। ১০ মে তার শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর থেকে জেনারেল হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি ছিলেন তিনি। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেনারেল হাসপাতালের করোনা টিমের ফোকাল পারসন ও মেডিসিন বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. আব্দুর রব। তিনি বলেন, ওই রোগীর ডায়াবেটিস ছিল। শ্বাসকষ্টও বেশি ছিল। শুরু থেকেই তাকে আইসিইউতে রাখা হয়। উনার ছেলেও একজন চিকিৎসক। স্বাভাবিকভাবেই ছেলেও অনেক চেষ্টা করেছেন। কিন্তু রোগীকে শেষ পর্যন্ত আমরা বাঁচাতে পারিনি।


এদিকে সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ফৌজদারহাটের বিআইটিআইডিতে শুক্রবার ২৫৫টি নমুনা পরীক্ষায় চট্টগ্রামের ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এর মধ্যে ১৩ জন মহানগরীর। আর ৪ জন উপজেলা পর্যায়ের। উপজেলা পর্যায়ে আনোয়ারা ও সীতাকুণ্ডে ২ জন করে শনাক্ত হয়েছে।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের (চমেক) ল্যাবে ১০৯টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে গতকাল। এর মধ্যে চট্টগ্রামের ৪৭ জনের করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তদের ৪৫ জনই মহানগরীর। আর উপজেলার ২ জনের মধ্যে সীতাকুণ্ড ও বোয়ালখালীতে একজন করে আছেন।

এদিকে, আগেরদিন (বৃহস্পতিবার) ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবে ১০০টি নমুনা পরীক্ষায় চট্টগ্রামের ৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ৪ জনই উপজেলা পর্যায়ের। চারজনের মধ্যে হাটহাজারীর ৩ জন ও একজন চন্দনাইশের বাসিন্দা। এছাড়া কঙবাজার মেডিকেল কলেজের ল্যাবে চট্টগ্রামের দুটি উপজেলার (সাতকানিয়া ও লোহাগাড়ার) ২১টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে গতকাল। সবকয়টি নমুনাই নেগেটিভ বলে জানা গেছে।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানিয়েছেন, চট্টগ্রামের বাইরে অন্যান্য (রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি, নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষীপুর) জেলার ১৮ জনেরও করোনা পজিটিভ এসেছে গতকাল।

নগরীতে শনাক্তদের মাঝে বায়েজিদ, বন্দর, চকবাজার, ডবলমুরিং, আসাদগঞ্জ, আকবরশাহ, পশ্চিম বাকলিয়া, বউ বাজার, কোতোয়ালী, হালিশহর, নাসিরাবাদ, নিমতলা, পাথরঘাটা, আগ্রাবাদ, বন্দরটিলা, পাঁচলাইশ, পাহাড়তলী, সাগরিকা, দেওয়ানহাট, পতেঙ্গা, ইপিজেড, কর্নেলহাট, ঝাউতলা, কালুরঘাট, পাঠানটুলি, খাতুনগঞ্জ, রহমতগঞ্জ, ঈদগাঁ, কদমতলী, আসকারদীঘির পাড়, চান্দগাঁও, বহদ্দারহাট, মোহরা, শমসের পাড়া, আমবাগান, মেয়রগলি, ফ্রিপোর্ট, উত্তর কাট্টলী, নিউ মনসুরাবাদ, নয়াবাজারসহ নগরীর প্রায় সব জায়গায় করোনা শনাক্ত হয়েছে গতকাল।

নতুন করে করোনা শনাক্ত হওয়া রোগীদের আইসোলেশনে নেয়ার কথা জানান সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি। আক্রান্তদের বাসা-বাড়ি লকডডাউনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলেও জানান সিভিল সার্জন।

এদিকে, নতুন করে শনাক্ত ৬৮ জনসহ এ নিয়ে চট্টগ্রাম জেলায় করোনা আক্রান্ত শনাক্তের সংখ্যা ৬৩৬ জন। তবে ঢাকা, রাজবাড়ি, কুমিল্লা ও কঙবাজারে শনাক্ত হওয়া ৫ রোগী চট্টগ্রামের হাসপাতালগুলোতে ভর্তি হওয়ায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৪১ জনে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত চট্টগ্রামে মারা গেছে ৩২ জন। এছাড়া ৯৮ জন রোগী চিকিৎসা নিয়ে বাসায় ফিরে গেছেন বলে জানান সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার