চট্টগ্রামে স্ত্রীর হত্যাকারী ঘাতক স্বামীর ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

Img

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় স্ত্রীর হত্যাকারী ঘাতক স্বামীর ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৯ আগষ্ট) বেলা ১২টায় সদরের শাহপীর রোডে অনুষ্ঠিত হয় এ মানববন্ধন। শাহপীর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বিদ্যালয়ের সহপাঠীসহ সকল শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ৭ আগস্ট ভোরে লোহাগাড়া সদরস্থ ফোরকান টাওয়ারের ৫ম তলার ৫০৫ নং কক্ষে এক গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়। নিহত হাসনা হেনা বিউটি শাহপীর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের মেধাবী ছাত্রী। সে লোহাগাড়া উপজেলা সদর ইউনিয়নের দরবেশহাট সওদাগর পাড়ার জাফর আহমদের মেয়ে।

আটক স্বামী মোঃ শাকিব আধুনগর ইউনিয়নের রশিদার ঘোনা এলাকার মৃত দেরাজ মিয়ার পুত্র। একইদিন আটক স্বামীসহ ৪ জনকে আসামি করে নিহত মেয়ের পিতা জাফর আহমদ বাদী হয়ে লোহাগাড়া থানায় মামলা রুজু করেন।

পূর্ববর্তী সংবাদ

ভারতের কেরালা রাজ্যে ভূমিধসে ২০ জনের মৃত্যু

প্রবল বৃষ্টিপাতের কারনে ভারতের কেরালা রাজ্যে ভূমিধসে কমপক্ষে ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। বন্যার আশঙ্কায় কচিন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। 

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যে সব ফ্লাইট বিমানবন্দর ছেড়ে যাওয়ার কথা সেগুলো যথারীতি ছেড়ে যাবে। রানওয়ে ডুবে যাওয়ার আশঙ্কা থেকে কেবল বিমানবন্দরে অবতরণ বন্ধ রাখা হয়েছে।

কর্মকর্তারা আশঙ্কা করছেন, চিরুথনি বাঁধ থেকে পানির ঢল নামায় পিরিয়ার নদীর পানি আরো বাড়তে পারে।

এনডিটিভি অনলাইন জানিয়েছে, ইদুক্কি জেলায় ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে, মালাপ্পুরাম জেলায় ছয়জন, কোঝিকোদি জেলায় দুজন এবং ওয়াইয়ানাদ জেলায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া আরো তিন জেলায় এখনো বেশ কয়েকজন নিখোঁজ রয়েছে।

ইদুক্কির আদিমালি শহরে একই পরিবারের পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ ওই পরিবারের অপর দুই সদস্যকে আবর্জনার স্তুপ থেকে জীবিত উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে।

ইদুক্কি ও  ওয়াইয়ানাদ জেলায় উদ্ধার তৎপরতার জন্য রাজ্য সরকার সেনাবাহিনীর সহযোগিতা চেয়েছে।

পানির লেভেল বেড়ে যাওয়ায় রাজ্যের ২২ টি বাঁধ খুলে দেওয়া হয়েছে। ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত পানি হয়ে যাওয়ায় ২৬ বছর খুলে দেওয়া হয়েছে ইদুক্কি বাঁধ।

মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই ভিজয়া বলেছেন, ‘সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, এনডিআরফের কাছ থেকে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। এনডিআরএফের তিনটি টিম আলাপ্পুঝা,  ওয়াইয়ানাদ ও কোঝিকোদিতে কাজ করছে। আরো দুটি টিমকে পাঠানো হয়েছে। কেরালায় অতিরিক্ত ছয়টি টিম পাঠানোর জন্য কেন্দ্রীয় সরকারকে বলা হয়েছে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার