খুলনা-গাজীপুর সিটি নির্বাচনে ব্যালট বাক্স ছিনতাই , গ্রেফতার ও পুলিশী হয়রানির খবরে উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র

Img

ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট বলেছেন, খুলনা ও অতি সম্প্রতি অনুষ্ঠিত গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ব্যালট বাক্স ছিনতাই এবং বিরোধী রাজনৈতিক নেতা ও পোলিং এজেন্টদের ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগের খবরে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন। এ ছাড়া বিরোধী রাজনৈতিক নেতা ও পোলিং এজেন্টদের গ্রেফতার ও পুলিশী হয়রানির বিষয়েও যুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন। বৃহস্পতিবার ডিল্লোমেটিক করেসপনডেন্টস এ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ (ডিকাব) আয়োজিত অনুষ্ঠানে মার্শা বার্নিকাট এ উদ্বেগের কথা জানান । মার্শা বার্নিকাট বলেন, বাংলাদেশ সরকার একটি অবাধ, সুষ্ঠু, অংশগ্রহণমূলক ও বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন আয়োজনে প্রতিশ্র“তিবদ্ধ, যে নির্বাচনে জনগণের মতামতের প্রতিফলন ঘটবে। আমরা দেখতে চাই, সরকার তার অঙ্গীকার পূরণ করবে । ডিকাব সভাপতি রেজাউল করিমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ মিশু । 

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভালো-খারাপ সব রকম দৃশ্যই দেখা গেছে । নির্বাচন পর্যবেক্ষণকারী সংস্থাগুলো বেশ কিছু কেন্দ্র অনিয়মের অভিযোগ এনেছে । ভোটারের কাছ থেকে ব্যালট নিয়ে সিল মারা, বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ, ব্যালট ছিনতাই, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর এজেন্টদের হুমকি ও কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া, কেন্দ্রের ভেতরে-বাইরে সরকারি দলের নেতা-কর্মীদের দাপটসহ সর্বত্র নিয়ন্ত্রণ ছিল । আবার কিছু কিছু কেন্দ্রে ভালো ভোটের চিত্রও দেখা গেছে । আওয়ামী লীগ-সমর্থিত ও দলের ‘বিদ্রোহী’ কাউন্সিলর পদপ্রার্থীদের মধ্যে বিক্ষিপ্ত সংঘাত, পাল্টাপাল্টি ধাওয়া হলেও বড় ধরনের কোনো গোলযোগ বা রক্তপাতের ঘটনা ঘটেনি । তারপরও নয়টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে । 

বার্নিকাট বলেন, গাজীপুর সিটি নির্বাচন নিয়ন্ত্রণ করার যেসব অভিযোগ এসেছে, সে ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন। এসব অভিযোগের মধ্যে আছে ব্যালট বাক্স ভরে দেওয়া,  ভোটের দিন ও আগে পোলিং এজেন্ট এবং রাজনীতি সংশ্লিষ্টদের ভয়ভীতি দেখানো । নির্বাচনের সপ্তাহে বিরোধী রাজনীতিবিদ ও কর্মীদের যেভাবে পুলিশি হয়রানি গ্রেফতার করা হয়েছে, সে ব্যাপারেও আমরা আরো উদ্বিগ্ন। জনগণের চাওয়া অনুযায়ী সরকার দেশে অবাধ, সুষ্ঠু, বিশ্বাসযোগ্য এবং অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করার ব্যাপারে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। আমরা দেখতে চাই সরকার তার প্রতিজ্ঞা রাখতে চায়। খুলনা ও গাজীপুর নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে মার্কিন রাষ্ট্রদূত বার্নিকাট কথা বলেন আসন্ন জাতীয় নির্বাচন নিয়ে। আরো বলেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন কোন কোন ক্ষেত্রে প্রধান নির্দেশক হিসেবে কাজ করে, এটা বোঝার জন্য যে  আসন্ন জাতীয় নির্বাচন কেমন হতে পারে। নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে কি না, এ নিয়ে আমি আপনি কী ধারণা করছি, এটা হয়তো আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ । কিন্তু সত্যিকারের গুরুত্বপূর্ণ জনগণ নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলে মনে করছে কি না । স্থানীয় নির্বাচনের পর আসছে জাতীয় নির্বাচন ।

এ দেশের মানুষ চায় না নির্বাচন নিয়ে উদ্বিগ্ন হতে। সবাই চায় ঠিকমতো যেন ভোট দেওয়া যায় এবং তাদের পছন্দের প্রতিফলন যেন নির্বাচনের ফলাফলে ফুটে ওঠে। টেকসই উন্নয়ন ও প্রবৃদ্ধির জন্য বাংলাদেশের সামনে মূল চ্যালেঞ্জ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র কোন বিষয়গুলো মনে করছে, সে ব্যাপারেও কথা বলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত। বার্নিকাট বলেন, মত প্রকাশের স্বাধীনতা, শক্তিশালী গণমাধ্যম, শান্তিপূর্ণ উপায়ে মিছিল-মিটিং করার অধিকার এবং সেইসঙ্গে অবাধ, সুষ্ঠু, বিশ্বাসযোগ্য এবং অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন বাংলাদেশের ধারাবাহিক ও টেকসই প্রবৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত প্রয়োজন ।

পূর্ববর্তী সংবাদ

মালয়েশিয়ায় জুলাই থেকে কমতে পারে টাকার দাম

আগামী জুলাই মাস থেকে সৌদি আরব তেল উত্তোলন বাড়িয়ে দেওয়ায় মালয়েশিয়া রিংগিত এর দাম কমতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা । মালয়েশিয়ার অর্থনীতি অনেকটাই নির্ভরশীল তেলের উপরে , তাই যদি সৌদি আরব সত্যি তেলের উত্তোলন বাড়িয়ে দেয় , তাহলে মালয়েশিয়া রিংগিত এর দাম কমে , ডলার দাম বেশি হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি ।

​ আগামী জুলাই থেকে সৌদি আরব ১ কোটি ৮০ লাখ ব্যারেল তেল উত্তোলনের পরিকল্পনা নিয়েছে। এটি হবে সৌদি আরবের খনিজ তেল উৎপাদনের সর্বকালের সর্বোচ্চ রেকর্ড।বিশেষজ্ঞরা ভাবছেন আগামী মাস থেকে তাই আন্তর্জাতিক ভাবে কমবে খনিজ তেলের দাম। চলতি বিশ্বকাপ আসরে রাশিয়ায় উপস্থিত হয়েছিলেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। সে সময় রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের বৈঠকে হয়। বৈঠকে সৌদি আরবের তেল উত্তোলন সংক্রান্ত আলোচনা হয়। বৈঠকে জানানো হয়, সৌদি আরবের জাতীয় তেল উত্তোলন কোম্পানি 'আরামকো' আগামী জুলাই মাস থেকে অতিরিক্ত ৮০ লাখ ব্যারেল তেল উত্তোলন করবে।
 

এছাড়া বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের দাবি, আগামী নভেম্বর মাসে মার্কিন কংগ্রেসের মধ্যবর্তী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ট্রাম্প চান নির্বাচনের আগে বিশ্ববাজারে তেলের দাম কম দেখাতে। এজন্য সৌদি আরবকে ট্রাম্প বাড়তি তেল উত্তোলনের চাপ দিয়ে আসছিলেন। তাতে শেষমেশ সায় দিল সৌদি আরব। ​আর যার কারণেই মালয়েশিয়ার বিপরীতে বাংলাদেশের টাকার রেট কমতে পারে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার