খুলনার নতুন রাস্তায় প্রতারকচক্র স‌ক্রিয়, সর্বস্ব হারা‌চ্ছে মানুষ

Img

প্রতারণার মাধ্যমে সুফিয়া বেগম নামের ষাটোর্ধ্ব এক মহিলার স্বর্ণালংকার, নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে গেছে সংঘবদ্ধ একটি চক্র।

বুধবার (১৩ অক্টোবর) নগরীর নতুন রাস্তা রেলক্রসিং রোডে এ ঘটনাটি ঘটে। তবে স্থানীয়রা প্রতারণার সাথে জড়িত থাকায় কাউকে আটক করতে পারেনি। সবকিছু হারিয়ে কাঁদতে থাকেন সুফিয়া বেগম। ওই এলাকায় এটি নতুন ঘটনা নয়, একই ধর‌ণের ঘটনা আ‌গেও ঘটে‌ছে।

সুফিয়া বেগম এ প্রতিবেদককে জানান, বুধবার সকালে তিনি খুলনা মহাহিসাব রক্ষকের (এজি) কার্যালয়ে আসেন। দু’দিন আগে তার দেবর মারা যান। দেবর সরকারি চাকুরীজীবী হওয়ায় সেখানে গিয়েছিলেন তিনি। এরপর সোনাডাঙ্গা যান তিনি। সেখান থেকে বাসার উদ্দেশে রওনা হন। বেলা পৌনে ১২ টার দিকে নগরীর নতুন রাস্তা মোড়ে পৌছালে অপরিচিত দু’জন লোক এসে তার হাত ধরে বলে রাস্তা পার করে দিচ্ছি। রেলক্রসিং মোড়ে আসলে ওই দু’জন তার হাত থেকে ব্যবহৃত ব্যাগ নেওয়ার পর কানের দুল খুলতে বললে খুলে দেন তিনি। এরপর ওই প্রতারক দু’জন সটকে পড়ে। কিছুক্ষণ পর হুশ ফিরে আসলে ব্যাগ ও কানের দুল খুঁজতে থাকেন সুফিয়া বেগম। ব্যাগের ভেতর নগদ কিছু টাকা প্রয়োজনীয় কাগজ ও মোবাইল ছিল। সবকিছু হারিয়ে তিনি কাঁদতে থাকেন। তিনি বঙ্গবাসী স্কুল সংলগ্ন আনসার উদ্দিনের স্ত্রী।

গতমাসে একই চিত্রের অবতারণা হয় ওই একই স্থানে। ১৫ সেপ্টেম্বর রেলক্রসিং এলাকার আব্দুল জলিলের স্ত্রী রেহেনা বেগমের কাছ থেকে একইভাবে প্রতারণার মাধ্যমে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে যায় প্রতারক চক্র। উপস্থিত অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, বয়স্ক ও সরলসোজা মহিলারা এদের টার্গেট। ইতিপূর্বের ঘটনাগুলো খালিশপুর থানায় অবগত করা হলেও থানা পুলিশ সেখানে কোন অভিযান চালায়‌নি বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

পূর্ববর্তী সংবাদ

কুয়েটের ৩৪ শিক্ষক বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায়

২০২১ সালের বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় মর্যাদাপূর্ণ স্থান করে নিয়েছেন খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) এর বিভিন্ন বিভাগের ৩৪ জন শিক্ষক। বিশ্বসেরা গবেষকদের নিয়ে প্রকাশিত এডি সায়েন্টিফিক ইনডেক্স ২০২১ এ স্থান করে নিয়েছেন কুয়েটের শিক্ষকগণ।

তালিকায় ক্রমান্বয়ে স্থান পাওয়া শিক্ষকরা হলেন প্রফেসর ড. মহিউদ্দিন আহমাদ, প্রফেসর ড. মোস্তফা জামান চৌধুরী, প্রফেসর ড. মোঃ আব্দুল্লাহ ইলিয়াছ আক্তার, প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর, প্রফেসর ড. মোঃ আমিনুল হক আকন্দ, মোঃ মিলন ইসলাম, ড. মোঃ ইলিয়াস উদ্দিন, প্রফেসর ড. এম এম এ হাসেম, ড. নরোত্তম কুমার রায়, প্রফেসর ড. কাজী হামিদুল বারী, ড. মোঃ হাবিবুর রহমান সবুজ, প্রফেসর ড. পল্লব কুমার চৌধুরী, ড. এ বি এম মামুন জামাল, প্রফেসর ড. আশরাফুল গণি ভূঁইয়া, প্রফেসর ড. মোঃ নূরুন্নবী মোল্লা, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মাছুদ, প্রফেসর ড. কে এম আজহারুল হাসান, প্রফেসর ড. মনির হোসেন, ড. মোঃ আবুল হাসেম, প্রফেসর ড. সজল কুমার অধিকারী, প্রফেসর ড. মোঃ মোস্তফা সারোয়ার, প্রফেসর ড. মোঃ সিরাজুল ইসলাম, প্রফেসর ড. সোবহান মিয়া, ড. মোঃ আরাফাত হোসেন, প্রফেসর ড. মুহাঃ রফিকুল ইসলাম, প্রফেসর ড. কাজী মোঃ রকিবুল আলম, প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুব আলম, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ শেখ সাদী, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আবদুল জলিল, প্রফেসর ড. মোঃ রফিকুল ইসলাম, প্রফেসর ড. শিবেন্দ্র শেখর শিকদার, ড. মুহাম্মাদ মুঈনুল ইসলাম, ড. মোঃ হাবিবুল্লাহ, প্রফেসর ড. মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান।

এডি সাইন্টিফিক ইনডেক্স নামের আন্তর্জাতিক খ্যাতনামা সংস্থা সারা বিশ্বের ২০৬ দেশের ১৩,৫৩৭ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত লক্ষাধিক বিজ্ঞানীর সাইটেশান এবং অন্যান্য ইনডেক্সের ভিত্তিতে ১২ টি ক্যাটাগরিতে এই র‌্যাংকিং এর তালিকা প্রকাশ করেছে। এই র‌্যাংকিং করার ক্ষেত্রে বিশ্বের ৭,০৮,৯৫৭ জন গবেষকদের গুগল স্কলারের সংশ্লিষ্ট বিষয়ে চলতি বছরসহ গত ৫ বছরের সাইটেশন আমলে নেওয়া হয়।

এ বিষয়ে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) এর মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন বলেন, এই অর্জন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে গবেষণায় অনুপ্রেরণা যোগাবে এবং বিশ্ববিদ্যালয়কে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নেবে।

কুয়েটকে বিশ্বমানে উন্নীত করা এবং আন্তর্জাতিক পরিসরে মর্যাদাপূর্ণ অবস্থান তৈরিতে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীদের নিরন্তরভাবে গবেষণার মাধ্যমে দেশের কল্যাণে দিকনির্দেশনা প্রদান ও নতুন নতুন উদ্ভাবনের আহবান জানান।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার