খুলনার গ্রামাঞ্চলে শীত জেঁকে বসছে : গরম পোশাক বিক্রি শুরু

Img

দিনের বেলায় তাপমাত্রা স্বাভাবিক থাকলেও রাত্রে বেলায় কড়া নাড়ছে শীত। সেই সাথে বইছে উত্তরের হিমেল বাতাস শহর এলাকায় তেমনটি শীতের প্রভাব না থাকলেও গ্রামের পাড়া মহল্লায় সন্ধ্যার পর তীব্র শীত।

এ ছাড়া কয়েক দিন ধরেই হালকা শীত পড়ার পর গরম কাপড় কেনা-বেচা শুরু হয়। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় ফুলতলা জামিরা বাজার এলাকায় দুপুরের পর থেকে ছোট ফাঁকা জায়গায় মাটির উপর কাপড় বিছিয়ে শীতের পোশক বিক্রি করছেন।

পাশাপাশি দোকনটি ঘিরে নারী পুরুষ ক্রেতাদের সমাগম। এ বিষয়ে ক্রেতা হালিমা বেগম বলেন, হঠাৎ করে ভালোই শীত জেঁকে বসছে। বিশেষ করে সন্ধার পর থেকে শরীরে বেশি ঠান্ডা অনুভূত হচ্ছে। তবে প্রতি পোশাকে আগে বছরের তুলনায় বেশি দাম নিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন ক্রেতা।

এ ছাড়া শুধু গ্রাম বা মহল্লায় না নগরীর বিভিন্ন স্থানে ফুটপাত থেকে শুরু করে শপিং মলে ও দেখা মিলছে গরম কাপড়। তবে শহরে ভ্রাম্যমাণ ভ্যানে বিক্রি করতে দেখা যায় গরম, কাপড়।

এ বিষয়ে ক্রেতা শরিফুর আলম বলেন, আমি এসেছি আমার ছোট বাচ্চার জন্য গরম পোশাক ক্রয় করতে নগরীর ডাকবাংলা এলাকায় দোকানীরা বলছে এ বছর এখনও নতুন করে গরম পোশাক আমদানি হয়নি। গেল বছরের গরম পোশাক বিক্রি করছে। তবে নতুন করে গরম কাপড় আমদানি হলে আরো বেশি দাম দিয়ে ক্রয় করতে হবে।

যে কারণে দোকানীর কথা মত আরো বেশ কয়েকটি গরম কাপড় ক্রয় করেছি। তবে বাচ্চাদের গরম কাপড় অতিরিক্ত দাম নিচ্ছে। এছাড়া দেখা যায় শীতের তিব্র ঠান্ডা থেকে বাঁচতে মাথার গরম টুপি, জুতা, মোজা, কানটুপি হুডি গেঞ্জিসহ অন্যান্য শীত সামগ্রী বিক্রি করছে।

এ বিষয়ে পোশাক ব্যবসায়ি কাজী আরাফাত হোসেন বলেন, এখনও পর্যন্ত বাহিরের থেকে কোন কাপড় আসেনি। গেল বছরের যেসব গরম পোশাক ছিল সেই পোশাক বিক্রি করছি। তবে এবার যদি নতুন করে বাহিরের থেকে কাপড়ের বেল আসে তাহলে আগের থেকে বেশি দাম হবে।

মূলত জ্বালানি তেলসহ অন্যান্য খরচ বৃদ্ধি কারণে এ আকারে দাম বাড়বে। গেল বছর ও আমরা ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকায় একটি বেল ক্রয় করতে পেরেছিলাম। তবে এ বছর মাহাজনরা আগাম সতর্ক বার্তা জানিয়েছে যে দাম বাড়বে। তবে কি পরিমাণ দাম বাড়তে পারে এমনটি নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে খুলনা আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা মো. আমিরুল আজাদ বলেন, এখনও খুব বেশি ঠান্ডা শুরু হয়নি। এ ছাড়া গেল কয়েকদিন কুয়াশা ও রাত্রের তাপমাত্রা অনেক কমেছে। তবে ২৭ তারিখের পর সুমুদ্রে একটি লঘুচাপ হওয়ার সম্ভবনা আছে। এরপর থেকে শীত শুরু হবে রাত্রে আরো বেশি তাপমাত্রা কমবে। তবে নিম্নচাপ হওয়ার কোন সম্ভনা এখন নেই।


প্রবাসীরদিগন্ত/ইউএইচ

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার