কোন দলের সমর্থক বুবলী?

Img

ঢাকাই ছবির জনপ্রিয় নায়িকা শবনবম বুবলীর। কোপা আমেরিকার ফাইনালে মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। কোন দলের সমর্থক ঢাকাইয়া ছবির এই নায়িকা? প্রশ্নের সরাসরি উত্তর না দিয়ে বুবলী জানালেন, দুই দলের খেলাই তার কাছে উপভোগের।

তবে দুই দলের খেলা ভালো লাগলেও এ দুই দলের মধ্যে কোন দলকে সমর্থন করবেন জানতে চাইলে বুবলী জানালেন, নিজেদের পছন্দের দলের নামটা বলার পক্ষপাতি নন তিনি। বুবলী বলেন, ফুটবল একটি নান্দনিক খেলা। ছোটবেলা থেকেই ফুটবল খেলা দেখি। তখন থেকে যে দলই ভালো খেলে, সে দলকেই সমর্থন করি। এখন মেসি-নেইমারের খেলা ভালো লাগে।

বুবলী জানান, শুরু থেকেই এবারের কোপা আমেরিকার মাঠের লড়াই উপভোগ করছেন তিনি। করোনার কারণে চলছে কঠোর লকডাউন। তাই শুটিং বন্ধ। হাতে অফুরন্ত সময় থাকায় খেলা দেখা হচ্ছে।

এদিকে বুবলী দেশে আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল ফুটবল দলকে যারা সমর্থন করছেন, তাদের জন্য সম্প্রতি একটি বার্তা দিয়েছেন। ফুটবল বিশ্বে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী এই দুই দলের বহু সমর্থক রয়েছে বাংলাদেশে। প্রিয় দলকে নিয়ে ভক্তরা তর্কেও জড়াচ্ছেন। সেই তর্ক অনেক সময় মারামারিতে গড়ায়। বিষয়টি উল্লেখ করে নায়িকা বুবলী দুই দলের সমর্থকদের সংযত হতে বললেন।

পূর্ববর্তী সংবাদ

স্বামী নিখোঁজ থাকলে বা যে যে কারণে স্ত্রী কর্তৃক তালাক দিতে পারে

বিয়ে একটি পারিবারিক বন্ধন। এই বন্ধনকে জোড়ালো করতে দুই হাত এক করে নেয়া হয় সারা জীবন একসঙ্গে থাকার পণ। কিন্তু এই সংসার জীবন সবসময় সুখকর হয় না। কখনো কখনো এই সুখের সংসারে নেমে আসে তিক্ততার ছায়া। আর তখনই আসে তালাকের প্রশ্ন।

তালাকঃ বর্তমান সময়ে বিয়ে বিচ্ছেদের হার অনেক বেশি। কিন্তু অনেকের এ বিষয়ে সঠিক ধারণা না থাকায় তারা বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটানোর সময় বিভিন্ন সমস্যায় পড়ে। বিশেষত মেয়েদের ক্ষেত্রে তাদের দেনমোহর ও ভরণ-পোষণ থেকে বঞ্চিত করা হয়।

মুসলিম পারিবারিক আইনে বিয়ের মাধ্যমে স্থাপিত সম্পর্ককে আইনগত উপায়ে ভেঙে দেওয়াকে তালাক বা বিয়ে বিচ্ছেদ বলে। কাবিননামার ১৮ নং কলামে স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে বিয়ে বিচ্ছেদের ক্ষমতা দেয়াকে তালাক-ই-তৌফিজ বলে। এই তালাক-ই-তৌফিজ এর ক্ষমতা দেয়া থাকলে স্ত্রী আদালতের আশ্রয় ছাড়াই স্বামীকে তালাক দিতে পারেন।

এছাড়া কোনো নারীর স্বামী দীর্ঘদিন যাবত নিখোঁজ থাকলে তিনি বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটাতে পারবেন। এক্ষেত্রে স্বামীর মতোই স্ত্রী তালাকের নোটিশ চেয়ারম্যানের কাছে পাঠাবেন। নোটিশ প্রাপ্তির ৯০ দিন পর তালাক কার্যকর হবে।

নিম্নে লিখিত যেকোন উপায়ে একজন স্ত্রী তালাক সম্পন্ন করতে পারেন:

আদালত: একজন স্ত্রী আদালতের মাধ্যমে বিচ্ছেদ ঘটাতে পারেন। কাবিননামার ১৮ নং কলামে কাবিন নামার ১৮ নং কলামে বিবাহ বিচ্ছেদের বিষয়টি উল্লেখ থাকলে, একজন স্ত্রী কারণবশত বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটাতে পারেন।

স্বামী-স্ত্রী সিদ্ধান্ত: স্বামী স্ত্রী যদি সিদ্ধান্ত নেন যে তারা বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটাবেন। তবে তারা শান্তিপূর্ণভাবে বিবাবহ বিচ্ছেদ ঘটোতে পারেন।

স্বামী নিখোঁজ: ১৯৩৯ সালের মুসলিম বিবাহ বিচ্ছেদ আইন অনুযায়ী একজন স্ত্রী যেসব কারণে স্বামীর বিরুদ্ধে আদালতে বিয়ে বিচ্ছেদের আবেদন করতে পারেন। স্বামী নিখোঁজ থাকলে যদি চার বছর যাবৎ স্বামী নিরুদ্দেশ থাকলে বা কোন খোঁজ খবর না নিলে ও ২ বছর যাবৎ স্ত্রীর খোরপোষ প্রদানে অবহেলা বা ব্যর্থ হলে একজন নারী বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটাতে পারনেবন।

একাধিক বিয়ে: কোনো স্বামী যদি স্ত্রীর অনুমতি ছাড়া একাধিক বিবাহ বন্ধনে অবদ্ধ হয় তবে স্ত্রী স্বামীকে তালাক দিতে পারবে।

৭ বছর কারাদণ্ড: কোনা অপরাধ সংঘটনের কারণে স্বামী ৭ বছর বা তার বেশি সময়ের জন্য কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে একজন স্ত্রী তালাকের সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার