কুরবানির পশু কিনেছেন। ঈদের কুরবানি হবে। গোশত কাটা হবে। কতই না আনন্দ। কিন্তু সে আনন্দ মাটি হতে পারে কয়েকটি জিনিস থেকে সাবধান না থাকলে। তাই যেখানেই থাকুন ঈদের দিন মেনে চলতে হবে কিছু জিনিস। আসুন দেখে নেই সেগুলো।

১. পশু কোরবানির সময় শিশুদের দূরে রাখুন। কোনভাবেই তাদের সামনে পশু জবাই করবেন না। এতে শিশুটি ভয় পেতে পারে। যা পরে তার মনোজগতে বড় প্রভাব ফেলতে পারে।

২. ছুরি, চাপাতিসহ ধারালো সব কিছু শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।

৩. খেলার ছলে শিশুরা কুরবানির পশুর আশেপাশে গেলে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এদিকে খেয়াল রাখুন।

৪. পশু কুরবানি যেমন দায়িত্ব। তেমনি পশুর চামড়া সুন্দরভাবে ছাড়িয়ে সংরক্ষণ করাও দায়িত্ব। দেশের চামড়া শিল্পের বড় মজুদ কুরবানির পশুর চামড়া থেকেই আসে।

৫. কোন বর্জ্য খোলা স্থানে কিংবা ড্রেনে নয়। শহরে কোরবানি দিলে নির্দিষ্ট স্থানে রাখুন। সিটি কর্পোরেশনের গাড়ি এসে নিয়ে যাবে।

৬. ময়লা ছড়িয়ে ছিটিয়ে না রেখে এক স্থানে রাখুন। এতে আপনার সুন্দর শহর আপনাকে দ্রুত ফিরিয়ে দেয়া যাবে। ময়লা নেয়ার পর অবশ্যই ব্লিচিং পাউডার দিয়ে স্থানটি পরিষ্কার করে নিন।

৭. গ্রামের বাড়ি হলে অবশ্যই ময়লা মাটিচাপা দিয়ে কুরবানির স্থানটি ব্লিচিং পাউডার দিয়ে পরিষ্কার করে রাখুন।

৮. যে পশুকে কুরবানি দেয়া হচ্ছে, তার জন্যে আপনার এবং আপনার সন্তানের মধ্যে মমতা থাকা আবশ্যক। আপনার সন্তানের কাছে কোনভাবেই কুরবানি দেয়াটাকে আনন্দময় ব্যাপার হিসেবে উপস্থাপন করা ঠিক হবে না। আপনার ঈদ ও ঈদের পরের সময়টাও সুন্দর কাটুক।