করোনাভাইরাসে অক্রান্ত হয়ে ভারতের কর্নাটকে ছিয়াত্তর বছর বয়সী এক বৃদ্ধের গত মঙ্গলবার মৃত্যু হয়েছে। ভারতে করোনা সংক্রমণে এটাই প্রথম মৃত্যু। বৃহস্পতিবার রাতে কর্নাটকের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বি শ্রীরামুলু এ কথা জানিয়েছেন।

খবর: আনন্দবাজার প্রত্রিকা কর্নাটক সরকার জানিয়েছে, ওই বৃদ্ধের লালারস পরীক্ষায় নোভেল করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি দিয়ে ওই মৃত্যুর কথা জানিয়েছে। ওই বৃদ্ধের মৃত্যুর খবর জানিয়ে কর্নাটকের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর টুইট, কলবুর্গীর বাসিন্দা ৭৬ বছরের ওই বৃদ্ধ দু’দিন আগে মারা যান। সন্দেহ করা হয়েছিল, তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত।

পরীক্ষায় তার প্রমাণ মিলেছে। কলবুর্গীর বাসিন্দা ওই বৃদ্ধ গত ২৯ ফেব্রুয়ারি সৌদি আরব থেকে ফিরেছিলেন। হায়দরাবাদ বিমানবন্দরে তার পরীক্ষাও হয়েছিল। সেই সময় তার দেহে সংক্রমণের কোনো ইঙ্গিত ছিল না। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, গত ৬ মার্চ ওই বৃদ্ধের জ্বরের উপসর্গ ও সর্দি-কাশি হয়। ওই দিনই তাকে বাড়িতে গিয়ে দেখে আসেন একজন চিকিৎসক।

৯ মার্চ অবস্থার অবনতি হলে কলবুর্গী জেলার একটি হাসপাতালে বৃদ্ধকে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসকদের সন্দেহ হয়, বৃদ্ধ করোনা-আক্রান্ত। ৯ মার্চই বৃদ্ধের লালারস সংগ্রহ করে পরীক্ষায় পাঠানো হয়। তিনি জানিয়েছেন, রিপোর্ট পাওয়ার আগেই চিকিৎসকদের মতামত উপেক্ষা করে ওই বৃদ্ধকে কলবুর্গীর হাসপাতাল থেকে হায়দরাবাদের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান পরিবারের সদস্যেরা।

সেই হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেয়ার পরে গত মঙ্গলবার ওই বৃদ্ধকে যখন কলবুর্গীর গুলবর্গা ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেসে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, তখন তিনি রাস্তায় মারা যান। কর্নাটকের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, ওই বৃদ্ধের পরিজন এবং তার সঙ্গে হাসপাতালে যারা দেখা করতে গিয়েছিলেন, তাদের খোঁজ চলছে। নিয়ম অনুযায়ী, তাদের কোয়ারেন্টাইন করা হবে। বৃদ্ধ যে হায়দরাবাদের একটি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন, তা জানানো হয়েছে অন্ধ্রপ্রদেশে প্রশাসনকেও।