করোনার কারণে বরিশালে এবারও হয়নি ঈদের প্রধান জামাত

Img

করোনার কারণে ঈদুল ফিতরের মতো ঈদুল আযহায়ও বরিশালে ঈদের প্রধান জামাত হয়নি। নগরীর হেমায়েত উদ্দিন কেন্দ্রিয় ঈদগাহ ময়দানে ঈদের প্রধান জামাতের আয়োজন করেনি সিটি করপোরেশন। তবে সকাল ৭টা থেকে সাড়ে ৯টার মধ্যে নগরীর মসজিদগুলোতে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। শারীরিক দূরত্ব রক্ষায় সর্বাধিক ৪টি জামাত অনুষ্ঠিত হয় জেলা পুলিশ লাইনস জামে মসজিদে। বেশীরভাগ মসজিদে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষার চেষ্টা করা হয়। তবে কিছু মসজিদে কিছুটা বিচ্যুতি হয় ঈদের জামাতে। 

সকাল ৮টায় বরিশাল কালেক্টরেট জামে মসজিদে আয়োজিত ঈদ জামাতে অংশ নেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার আব্দুর রাজ্জাক এবং জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান। নামাজ শুরুর আগে তারা সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে করোনা এড়াতে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষা এবং কোরবানীর বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় সরকারের দিকনির্দেশনা মেনে চলার আহ্বান জানান। নামাজ শেষে মোনাজাতে করোনামুক্ত সুখি-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ কামনা করা হয়। 

বরিশাল বিভাগে ঈদের সর্ববৃহৎ জামাত অনুষ্ঠিত হয় সদর উপজেলার চরমোনাই দরবার শরীফ মাঠে সকাল ৯টায়। পীর সাহেব চরমোনাই মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করিম সর্ববৃহৎ ঈদ জামাতে ইমামতিত্ব করেন। 

বিভাগের দ্বিতীয় বৃহত্তম ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয় পিরোজপুরের নেছারাবাদের ছারছিনা দরবার শরীফ মাঠে সকাল সাড়ে ৮টায়। 

বিভাগের তৃতীয় বৃহত্তম ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল ৮টায় ঝালকাঠীর এনএস কামিল মাদ্রাসা মাঠে। 

পটুয়াখালীর মীর্জাগঞ্জ হযরত ইয়ার উদ্দিন খলিফা (রা.) দরবার শরীফ মাঠে বিভাগের চতুর্থ বৃহত্তম ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল ৭টায়। 

বরিশালের উজিরপুরের গুঠিয়ার দৃষ্টিনন্দন জামে বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্সে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল ৮টায়। 

এছাড়া নগরীর গোরস্থান রোড আঞ্জুমান-ই হেমায়েত-ই ইসলাম ময়দানে সকাল ৮টায়, চৌমাথা মার্কাজ জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায়, কেন্দ্রিয় কারাগার জামে মসজিদে সকাল ৮টায়, সদর রোডের জামে বায়তুল মোকাররম মসজিদে সকাল ৮টায় ও ৯টায় দুটি জামাত, হেমায়েত উদ্দিন রোডের জামে কশাই মসজিদে সকাল ৮টায় ও ৯টায় দুটি জামাত, চক বাজারের জামে এবাদুল্লাহ মসজিদে সকাল ৮টায়, ৯টায় ও ১০টায় তিনটি জামাত এবং পুলিশ লাইনস জামে মসজিদে সকাল ৮টায়, সকাল সাড়ে ৮টায়, সকাল ৯টায় ও সকাল সাড়ে ৯টায় মোট ৪টি জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিক্রিয়া (২৬) মন্তব্য (০) শেয়ার (৭)