কপিলমুনি ইউপি'র ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যাক্তা মনি'র বিরুদ্ধে অভিযোগ

Img

খুলনার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি ইউপি'র অধিনে আইসিটি ডিজিটাল সেন্টারের পরিচালক মনির বিরুদ্ধে এবার অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগী এক মহিলা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার  দপ্তরে করা লিখিত অভিযোগে ইউনিয়নের বারুইডাঙ্গা গ্রামের নাছিমা বেগম এ অভিযোগ করেন।

তার লিখিত অভিযোগে জানাযায়, তার কন্যা রুবিনা আক্তারের জন্ম সনদের প্রয়োজন হওয়ায় তিনি নির্ধারিত ফরম পুরন করে ফরমটি জমা দেয়ার জন্য ইউপি সচিব আঃ গণির কাছে যান। সচিব আঃ গণি তাকে ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যাক্তা মনির নিকট জমা দিতে বলেন।

এ সময় তিনি বলেন, এ কাজটি উদ্যাক্তা মনি করে থাকে। তিনি ইউপি সচিবের কথামত উদ্যাক্তা মনিরুলের কাছে গিয়ে জমা দেন। কিন্তু মনিরুল সরকার নির্ধারিত ফি ৫০ টাকার পরিবর্তে ৬শ টাকা দাবি করলে বাঁধে বিপত্তি। এরপর বহু অনুনয় বিনয়ের এক পর্যায় ৫শ টাকায় রাজি হলে ফরমসহ টাকা জমা দিয়ে চলে আসেন তিনি। এর কিছু দিনপর মনিরুল আমাকে একটা জন্ম সনদ প্রদান করেন। যার নং ২০০০৪৭১৬৪৫০০৪৮৭৪৫। ভুক্তভোগী ওই মহিলা তার অভিযোগে উল্লেখ করেন তিনি সরল মনে জন্ম সনদটি নিয়ে বাড়িতে ফেরেন। পরবর্তীতে কন্যা রুবিনার কলেজের প্রয়োজনে ইন্টারনেটে সার্চ দিলে জন্ম সনদটির তথ্য পাওয়া যায়নি। সর্বশেষ তিনি প্রতিকারের জন্য পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর গত ০৯/০৫/২১ তারিখে লিখিত অভিযোগ করেন। 

ভুক্তভোগীদের এমন অসংখ্য অভিযোগ মনিরুলের বিরুদ্ধে। তিনি বাল্যবিবাহ সংক্রান্ত সনদ প্রদান করে বাল্যবিবাহে উৎসাহিত করে আসছেন। বিনিময়ে হাজার হাজার টাকা দু'হাতে কামিয়ে রাতারাতি আঙুল ফুলে বহু সহায় সম্পদ গড়ে নিয়েছেন।

ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যাক্তা মনিরুলের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ দপ্তরে জমা হয়েছে যা আগামীতে প্রকাশিত হবে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার