এখন পর্যন্ত পুরোপুরি করোনামুক্ত হলো যে সকল দেশসমূহ

বিষয়: করোনাভাইরাস
Img

চীন থেকে ছড়িয়ে পড়া বিশ্ব মহামারী প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করছে বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশ। এখনো পর্যন্ত আবিষ্কার হয়নি এর কোন ভ্যাকসিন। তবুও বেশ কিছু কৌশল অবলম্বন করে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই অব্যাহত রেখেছে বিশ্বের প্রতিটি দেশ। 

আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডওমিটারের সর্বশেষ অনুযায়ী বিশ্বজুড়ে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা ৪ লাখ ৮ হাজার ৬১৫ জন। আক্রান্ত হয়েছেন ৭১ লাখ ৯৩ হাজার ৪৭৬ জন। এছাড়া সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৫ লাখ ৩৫ হাজার ৫৭২ জন এবং এই ভাইরাসটিতে এ পর্যন্ত বিশ্বের ২১৫টি দেশ ও অঞ্চল আক্রান্ত হয়েছে। তবে আশার কথা হলো এই প্রাণঘাতী ভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি দেশ সফল হয়েছে-

নিউজিল্যান্ড: করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে করোনামুক্ত হয়েছে নিউজিল্যান্ড। দেশটিতে বর্তমানে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কেউ নেই। নিউজিল্যান্ডে গত ২ সপ্তাহে নতুন করে কেউ করোনা আক্রান্ত না হওয়ায় এবং সর্বশেষ করোনা রোগী সুস্থ হওয়ার পর নিউজিল্যান্ডকে করোনামুক্ত ঘোষণা করে দেশটির সরকার।

পূর্ব তিমুর: এশিয়ার এই দেশটিতে প্রথম করোনা শনাক্ত হয় ২১ মার্চ। তারপর থেকেই বন্ধ করা হয় স্কুল, জমায়েত। অন্য দেশ থেকে আসা সবাইকে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। দেশটির ২৪ তম শেষ করোনা রোগী ১৫ মে সুস্থ হয়ে ওঠেন।

ফিজি: গত ১৯ মার্চ ওশিয়ানিয়ার এ আইল্যান্ডে করোনা আক্রান্তের খবর মেলে। তারপরই প্রধানমন্ত্রী ফ্রেঙ্ক বেইনিমারামা বন্ধ করে দেন বিমান পরিবহন। ১৮ জন করোনা রোগীই সুস্থ হয়ে উঠেছেন এই দেশে। ফিজি নিজেদের করোনামুক্ত ঘোষণা করেছে ২০ এপ্রিল।

সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস: দেশটিতে প্রথম করোনায় আক্রান্তের খবর মেলে ২৪ মার্চ। এরপর মাত্র ১৫ জন আক্রান্ত হয়েছিলেন করোনায়। গত ১৯ মে নিজেদের করোনা মুক্ত বলে ঘোষণা করেছে এই দেশ।

হলি সি: মাত্র ১২ জন আক্রান্ত হয়েছিলেন এই দেশে। ৬ জুন নিজেদের করোনা মুক্ত ঘোষণা করে দেশটি।

সিসিলি: গত ১৪ মার্চ দেশটিতে প্রথম দুজনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। একটুও সময় নষ্ট করেনি এই দেশ। সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ করা চীন, ইতালি, দক্ষিণ কোরিয়া ও ইরানের সঙ্গে সব যাতায়াত। দেশটিতে আক্রান্ত হওয়া ১১ জন এখন পুরোপুরি সুস্থ।

পাপুয়া নিউ গিনি: গত ২০ মার্চ প্রথম করোনা শনাক্ত হয় দেশটিতে। তারপর মাত্র ৮ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন এ দেশে। গণপরিবহন ও জমায়েত বন্ধ করতেই ৪ মে করোনা মুক্ত হয়েছে পাপুয়া নিউ গিনি।

ইরিত্রিয়া: আফ্রিকার একেবারে পূর্ব দিকে ৬০ লাখ মানুষে দেশ ইরিত্রিয়া। গত ২১ মার্চ নরওয়ে ফেরত এক ব্যক্তির দেহে প্রথম করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। এরপর করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করে ১৫ মে সফল হয় দেশটি।

মন্টিনিগ্রো: ইউরোপের দেশ মন্টিনিগ্রো। গত ১৭ মার্চ প্রথম করোনা শনাক্ত হয়। এরপর আক্রান্ত হয় ৩২৪ জন। গত ২৪ মে নিজেদের করোনা মুক্ত বলে ঘোষণা করেছে দেশটি।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার