চাকরিজীবি থেকে একজন সফল ব্যবসায়ী

Img
মো. আনোয়ার হোসেন

আনোয়ার হোসেন। পিতা মো. খোরশেদ আলম ছিলেন একজন পিপলস জুট মিলের বদলী কর্মচারী ১৯৮৫/১৯৮৬ সাল, আনোয়ার হোসেন তখন থেকেই সংসারের হাল ধরেন। ছাত্র জীবনে তখন তিনি দিঘলীয়া উপজেলার জাকারিয়া মাদ্রাসা পড়ুয়া পাশাপাশি তিনি দৌলতপুর বাজার চিনির আড়তে কর্মরত। তারপর তিনি লেখাপড়ার পাশাপাশি সুরেশ সরিষা তৈল কোম্পানি তারপর ন্যাশনাল লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানিতে চাকরি করতেন।

এক সময় তিনি ভেবে দেখলেন তার জীবনে হয়তো আরও ভাল কিছু করার চেষ্টা তিনি করতে পারেন। তারই ফলপ্রসূ হিসাবে তিনি অক্সি মিনারেল ড্রিংকিং ওয়াটর কোম্পানিতে চাকরি নেন। অক্সি মিনারেল ড্রিংকিং ওয়াটার কোম্পানিতে চাকরি শুরু করেন একজন সেলস ম্যান হিসাবে। তার চাকরি জীবনে অক্সি মিনারেল ড্রিংকিং ওয়াটার কোম্পানিকে প্রতিষ্ঠিত করতে যেয়ে অনেক কষ্টো ও বিভিন্ন প্রতিকুলতার সম্মুক্ষিণ হতে হয়েছে। নিজের কাধে ২০ লিটার পানির জার নিয়ে বিভিন্ন রাস্তায়, গ্রামে গঞ্জে, শহরে, হোটেল এবং অফিস ঘুরে  বিক্রি করতেন।

কোম্পানির মালিক হাজি মো. আশরাফ হোসেন এক পর্যায়ে কোম্পানিটি বিক্রি করে দিতে চান। তখন আনোয়ার হোসেন তাকে বলেন স্যার কোম্পানিটা আমাকে দিন আমি আপনার নির্ধারিত মুল্য পরিশোধ করে দিবো।

আনোয়ার হোসেন নিজ কাধে দায়িত্ব নিয়ে জীবন যুদ্ধে নেমে পড়েন অক্সি মিনারেল ড্রিংকিং ওয়াটারকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য। তার কোম্পানির বর্তমান ডিলার আছে ২০০ জন তাদের কর্মচারি আছে ৪০০ জন, মোট ৬০০ জন শ্রমিক কাজ করে তাদের জীবন জীবিকা নির্ধারণ করে থাকেন।

আনোয়ার হোসেন বর্তমান দিঘলীয়া উপজেলাধীন পাবলা গ্রামে তার নিজ বাড়ি পঞ্চম তলা, বাড়ির নিচতলায় কোম্পানি এবং দ্বিতীয় তলায় নিজেরা ১টি ছেলে ১ টি মেয়ে এবং তার স্ত্রী নিয়ে বসবাস করেন। আজ তিনি একজন সফল মিনারেল ড্রিংকিং ওয়াটার ব্যাবসায়ি।

খুলনায় মিনারেল ড্রিংকিং ওয়াটার কোম্পানি আছে ৪২টি। তার মধ্যে
বিএসটিআই অনুমোদিত কোম্পানি আছে ১৪ টি। আনোয়ার হোসেন এর অক্সি মিনারেল ড্রিংকিং ওয়াটার কোম্পানি চতুর্থ স্থানে আছে তিনি চান তার কোম্পানি প্রথম স্থানে পৌছাক সেইসাথে তিনি চান। তার কোম্পানিতে আরও কিছু সংখ্যক লোক কাজ করুক যাতে করে দেশ থেকে আরও কিছু বেকার সমস্যা দূর হয়। তার আশা আছে অন্তত দুই হাজার  বা তারও অধিক লোকের কর্মসংস্থান তৈরি করতে।

তিনি সেবক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজি তিনি সবসময় অসহায় দুঃস্থ মানুষের পাশে ঢাল হয়ে দাড়ান বিপদে আপদে দিঘলীয়া উপজেলার মানুষের পাশে থাকেন।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার