এই শীতে কোন ত্বকে কেমন যত্ন

Img

শীতকালে শুষ্ক শীতল হাওয়া ও বাতাসে বেড়ে যাওয়া ধুলাবালুর কারণে ত্বক হয়ে যায় খসখসে ও মলিন। এর ফলে দেখা দেয় নানা সমস্যা, যেমন ত্বক ফেটে যাওয়া, ত্বকে চুলকানি ইত্যাদি। তাই শীতকালে ত্বকের সুস্বাস্থ্য রক্ষায় দরকার বাড়তি যত্ন ও সতর্কতা।

শুষ্ক ত্বক

যাদের ত্বক শুষ্ক তারা বাইরে থেকে ফিরে ক্লিনজিং লোশন কিংবা ক্রিমি ক্লিনজার দিয়ে ত্বক পরিষ্কার করুন। এর পর ওমেগা ফ্যাটি এসিড অ্যান্টি অক্সিডেন্টযুক্ত মিল্কি টোনার ব্যবহার করুন। গোসল বা হাত-মুখ ধোয়ার পর গ্লিসারিনের সঙ্গে সামান্য পানি মিশিয়ে ত্বকে ব্যবহার করতে পারেন। এটি প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজারের কাজ করবে। বাজারের কেনা ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে চাইলে বাদাম তেলসমৃদ্ধ ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। ১ টেবিল চামচ দুধের সরের সঙ্গে আধা চা চামচ মধু মিশিয়ে মুখের ত্বকে ব্যবহার করুন। ত্বক মসৃণ ও উজ্জ্বল থাকবে।
 

তৈলাক্ত ত্বক

যাদের তৈলাক্ত ত্বক তাদের ময়েশ্চারাইজারসমৃদ্ধ লোশন ব্যবহার করা প্রয়োজন। এ সময় তৈলাক্ত ত্বকের জন্য বেছে নিন অয়েল ফ্রি ময়েশ্চারাইজার। প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হিসেবে গোসলের আগে অলিভ অয়েলের সঙ্গে সামান্য পানি মিশিয়ে ত্বকে ব্যবহার করুন। ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। মধু, লেবুর রস ও বেকিং সোডার মিশ্রিত ফেসপ্যাক দিয়ে মুখের ত্বক স্ক্রাব করুন। ত্বকের মরা চামড়া উঠে ত্বক পরিষ্কার, উজ্জ্বল ও আর্দ্র থাকবে।

স্বাভাবিক ত্বক

হায়ালুরনিক এসিডযুক্ত ময়েশ্চারাইজার স্বাভাবিক ত্বকের জন্য উপকারী। হায়ালুরনিক এসিডযুক্ত ফেস সেরামও স্বাভাবিক ত্বকের ময়েশ্চারাইজার বজায় রাখে। দেবে বাড়তি জেল্লা। রাতে ঘুমানোর আগে ভিটামিন ‘বি’, ‘সি’ এবং ‘ই’সমৃদ্ধ ক্রিম ব্যবহার করুন। ত্বক নরম ও কোমল থাকবে। একটি পাকা কলা চটকে তার সঙ্গে সামান্য মধু মিশিয়ে মুখে লাগাতে পারেন। প্যাকটি ত্বক আর্দ্র, কোমল ও উজ্জ্বল রাখবে।

ভালো মানের লোশন ব্যবহার করুন

শীতে প্রাকৃতিক উপাদানে ত্বকের ময়েশ্চার বজায় রাখা ত্বকের জন্য সবচেয়ে বেশি উপকারী। পাশাপাশি ময়েশ্চারাইজারসমৃদ্ধ লোশনও ব্যবহার করুন। শীতের শুরুতে মুখের ত্বক এবং শরীরের জন্য ময়েশ্চারাইজারসমৃদ্ধ ভালোমানের লোশন কিনে নিতে পারেন। গোসল শেষে বা হাত-মুখ ধোয়ার পর ত্বক হালকা মুছে কিছুটা ভেজা থাকা অবস্থাতেই লোশন ব্যবহার করুন। রাতে ঘুমানোর আগেও লোশন ব্যবহার করুন। খুব বেশি পুরনো লোশন ব্যবহার করবেন না। পুরনো লোশন ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। ত্বকের ধরন অনুযায়ী কিনুন। প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার