ইরানের টিকা ৯০ শতাংশ কার্যকর

Img

করোনা প্রতিরোধে ইরানের বানানো টিকা ৯০ শতাংশ কার্যকরী বলে দাবি করেছেন দেশটির কর্মকর্তারা। সরকারি বার্তা সংস্থা আইআরএনএ’র বরাত দিয়ে আলজাজিরা এ খবর জানিয়েছে।

ইরানের বানানো টিকা ‘কোভিরান বারেকাত’-এর ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রধান মোহাম্মদ রেজা সালেহি জানান, মানবদেহে ট্রায়ালের প্রথম পর্যায়ে যারা অংশ নিয়েছেন তাদের ওপর এই টিকা আশাতীত সাফল্য দেখিয়েছে।

তিনি জানান, ট্রায়ালের সময় যারা এ টিকা নিয়েছেন তাদের ৯০ শতাংশের ক্ষেত্রে প্রাথমিক ফলাফলে দেখা গেছে, এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সক্ষম। তবে আরও নিখুঁত ফলাফল পেতে আরও বেশি পরীক্ষা চালানো দরকার বলেও জানান তিনি।

যুক্তরাজ্য থেকে সংক্রমিত করোনার নতুন স্ট্রেইন বা ধরন প্রতিরোধে এ টিকা শতভাগ কার্যকরী বলে এর আগে ইরানি কর্মকর্তারা দাবি করেছিলেন।

গত ডিসেম্বরে মোট ৫৬ জন স্বেচ্ছাসেবী কোভিরান বারেকাত টিকার প্রথম ডোজ গ্রহণ করেন। এ মাসের শুরুতে দ্বিতীয় ডোজও দেওয়া হয় তাদের। মানবদেহে দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু হবে চলতি বছরের মার্চে, শেষ হবে মে মাসে।

ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রধান মোহাম্মদ রেজা সালেহি বলেন, দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্যায়ের ফলাফল এক সঙ্গে করা হবে এবং এর প্রাথমিক প্রতিবেদন খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের কাছে জমা দেওয়া হবে।

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির অধীনে গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় সংস্থা ‘সেতাদ’-এর মাধ্যমে কোভিরান বারেকাতের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

তবে করোনা প্রতিরোধে এটিই ইরানের একমাত্র ভরসা নয়। এ মাসের শুরুতেই দেশটি জানিয়েছিল, তারা ‘রাজি কোভ-পার্স’ নামে আরেকটি টিকার গবেষণা শুরু করেছে। শিগগিরই টিকাটির মানবদেহে ট্রায়াল শুরু হবে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

এর পাশাপাশি ইরান অক্সফোর্ড-অ্যাসট্রাজেনেকা, চীন ও ভারতের থেকেও টিকা পাওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

করোনার তিনটি ঢেউতে এরইমধ্যে ইরানে ৬০ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছে। বর্তমানে দেশটির সরকার চতুর্থ ঢেউর আঘাত আসার আশঙ্কা করছে।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার