আয়া দিয়ে সিজার, কেটে ফেললেন নবজাতকের চোখ-কপাল

Img

ফরিদপুরে একটি ক্লিনিকে আয়া দিয়ে প্রসূতির সিজার করানো হয়েছে। এ সময় নবজাতকের কপাল কেটে ফেলেন আয়া। পরে আশঙ্কজনক অবস্থায় ওই নবজাতককে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হওয়ায় ওই ক্লিনিকে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে ক্লিনিকটি সিলগালা করে দেয় প্রশাসন।

স্বজনদের বরাত দিয়ে সদর সার্কেলের এএসপি সুমন রঞ্জন জানান, শনিবার সকালে শহরের পশ্চিম খাবাসপুর এলাকায় আল-মদিনা প্রাইভেট হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সিজারের জন্য ভর্তি হন রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ এলাকার রুবেন বেগম। সকাল ৮টার দিকে প্রসূতিকে সিজার করান হাসপাতালের আয়া চায়না রহমান। সিজারের সময় নবজাতকের কপাল ও চোখের একটি অংশ কেটে ফেলা হয়। এতে মারাত্মকভাবে ক্ষতি হয় নবজাতকের। পরে তার কপালে নয়টি সেলাই দেওয়া হয়।

বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় শুরু হলে সেখানে উপস্থিত হয় পুলিশের একটি দল। এ সময় চায়না রহমান ও ক্লিনিকের মালিক পলাশ মোল্যাকে আটক করা হয়।

পরে ঘটনাস্থলে হাজির হন সিভিল সার্জনসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা। ক্লিনিক চালানোর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকা ও আয়াকে দিয়ে সিজার করানোর অপরাধে ক্লিনিকটি সিলগালা করে দেওয়া হয়।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার