আমিরাতে গোন্ডেন ভিসা পেলেন শিল্পপতি ফখরুল ইসলাম সি আই পি

Img

সংযুক্ত আরব আমিরাতে ১০ বছর মেয়াদি ‘গোল্ডেন ভিসা’ (আমিরাতের স্থায়ী আবাসন) সম্মানসূচক গোল্ডেন ভিসা ও নাগরিকত্ব পেলেন জাতীয় কবিতা মঞ্চের প্রধান পৃষ্ঠপোষক, মীরসরাই সমিতি,সংযুক্ত আরব আমিরাত এর সম্মানিত সভাপতি,বাংলাদেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ সুমাইয়া গ্রুপ, আবুধাবি ও এফ, আই ,কে,প্রোপার্টিজ ডেভেলপমেন্ট লিঃ,বাংলাদেশ এর চেয়ারম্যান, খান কল্যাণ ট্রাষ্ট এর চেয়ারম্যান, হোটেল সুইস গার্ডেন ইন্টারন্যাশনাল এর চেয়ারম্যান,মিরসরাই কৃতিসন্তান, বিশিষ্ট শিল্পপতি, সমাজ সেবক, মানবতার কবি ফখরুল ইসলাম খান সি আই পি প্রসঙ্গত, গোল্ডকার্ড ভিসা হচ্ছে আমিরাতে ১০ বছর মেয়াদি ভিসা।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের মহামান্য রাষ্ট্রপতি শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান স্বপ্নদ্রষ্টা আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রাশেদ আল মাকতুম ঘোষিত গোল্ডকার্ডের প্রথম ধাপে যোগ্যতা সম্পন্ন ৬ হাজার ৮০০ প্রবাসীর একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছিল।

এই ভিসা পাওয়ার মাধ্যমে এসব প্রবাসীরা দেশটিতে নির্বিঘ্নে বসবাস ও ব্যবসা-বাণিজ্য করতে পারবেন। একমাত্র বিনিয়োগকারী, উদ্যোক্তা, গবেষক বিজ্ঞানী ও মেধাবী শিক্ষার্থী এ সুযোগ গ্রহণ করতে পারবে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবি Abu Dhabi Naturalization & Residency Directorate থেকে ১০ বছর মেয়াদি এই ‘গোল্ডেন ভিসা’ প্রাপ্ত হন।

গোল্ডেন ভিসার মতো অনন্য এই বিশেষ স্বীকৃতি পাওয়ায় আমিরাতের মহামান্য রাষ্ট্রপতি শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান, ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী এবং দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রাশিদ আল মাকতুম, আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান এবং আজমানের শাসক এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের সুপ্রিম কাউন্সিলের সদস্য শেখ হুমাইদ বিন রশিদ আল নুয়াইমী কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ফখরুল ইসলাম খান সি আই পি।

এই সময় তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি শেখ জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ান কে গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। আমিরাতের রাজধানী আবুধাবি, দুবাই, আজমানে বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ ও সফলভাবে ব্যবসা পরিচালনার পাশাপাশি নিজ দেশ, তথা বাংলাদেশে জনসেবামূলক কাজে তার সপৃক্ততার কারণে আমিরাত সরকার এই সম্মাননা প্রদান করেন।

ফখরুল ইসলাম খান সি আই পি বলেন এই গোল্ডেন ভিসা আমার এবং আমার দেশের জন্য বাংলাদেশী প্রবাসীদের জন্য একটি সম্মান। এ সম্মাননা প্রাপ্তিতে আমিরাতে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আমাকে আরও বেশি উৎসাহ দেবে এবং আমিরাতের অর্থনীতির বিস্তৃত হতে সহায়তা করবে। ব্যবসাবান্ধব অর্থনৈতিক সুযোগ ও সম্মান প্রদানের জন্য আমরা আরব আমিরাতের নেতৃত্বের প্রতি কৃতজ্ঞ এবং উত্তরোত্তর আরব আমিরাতের সমৃদ্ধি কামনা করছি।

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার