আদালতকক্ষে বিচারকার্য চলাকালীন বিচারককে লক্ষ্য করে জুতা ছুড়ে মারলেন আসামী। তবে বিচারক অল্পের জন্য রেহাই পেলেও এক আইনজীবীর গালে গিয়ে আঘাত করে আসামীর সে জুতা।

এ ঘটনায় হতভম্ব হয়ে পড়ে আদালতকক্ষে উপস্থিত সবাই। এরপরই চারদিকে উত্তেজনা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

মঙ্গলবার এমন আদালত অবমাননার ঘটনা ঘটেছে ভারতের কলকাতা নগর দায়রা জজ আদালতে। এ কাণ্ডটি করেছেন দেশটিতে জঙ্গি সন্দেহে গ্রেফতার মূসাউদ্দিন ওরফে মূসা নামের এক যুবক।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার জানিয়েছে, মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে আইনজীবীদের ভিড়ে আদালতকক্ষে কড়া নিরাপত্তায় আসামী মসিউদ্দিন ওরফে মূসার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। এ সময় রাগে গড়গড় করে কাঁপছিলেন মূসা। সাক্ষ্যগ্রহণ শুরুর কয়েক মুহূর্ত পরই বিচারকের উদ্দেশে জুতা ছুড়ে মারে মূসা। এ ঘটনার পর পরই মূসাকে ফের লকআপে নিয়ে যান পুলিশ সদস্যরা।

আনন্দবাজার জানিয়েছে, মুসার এমন আচরণ এটাই প্রথম নয়। এর আগেও কয়েকবার আইনশৃংখলা সংশ্লিষ্টরা তার আক্রমণের শিকার হয়েছেন।

এর আগে কলকাতার প্রেসিডেন্সি কেন্দ্রীয় সংশোধন কেন্দ্রে পাইপ দিয়ে এক কারারক্ষীর মাথায় আঘাত করেছিলেন মুসা। যে আঘাতের কারণে ওই কারারক্ষীর জীবন সংকটে পড়ে যায়।

এ ঘটনার আগে আলিপুরে পাথর ও চামচ দিয়ে এক কারারক্ষীকে হত্যার চেষ্টা করেছিলেন মুসা। দুই ঘটনায় তার বিরুদ্ধে থানায় হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা হয়।

এদিকে মঙ্গলবার বিচারককে জুতা নিক্ষেপের পর আদালতের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

মূসাকে সশরীরে হাজির না করিয়ে এখন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মূসার সাক্ষ্যগ্রহণের চিন্তাভাবনা করছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

আনন্দবাজার জানায়, মোহাম্মদ মূসাউদ্দিন ওরফে মূসাকে পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলার বাসিন্দা। ২০১৬ সালের ৪ জুলাই ইসলামিক স্টেটের (আইএস) জঙ্গি সন্দেহে বর্ধমান স্টেশন থেকে তাকে আটক করে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পুলিশ। বর্তমানে ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থার (এনআইএ) হেফাজতে আছেন মূসা।

মূসা ভারতে মার্কিন নাগরিকদের ওপর হামলা পরিকল্পনার সঙ্গে যুক্ত বলে অভিযোগ করছে দেশটির গোয়েন্দা সংস্থা।