অবৈধ অভিবাসী আটকে ৫ প্লান: মালয়েশিয়ায় বছরের শুরুতে ৭৮ বাংলাদেশি আটক

Img

মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিবাসীদের দেশে ত্যাগের পরপরই শুরু হয়েছে চিরুনি অভিযান। ২৪ ঘন্টায় ১২৪ টি অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন দেশের ১ হাজার ৮শত ৭১ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ২২০ জনকে গ্ৰেফতার করেছে অভিবাসন বিভাগ।

২৪ ঘন্টা আটককৃতদের মধ্যে ৭৮ জন বাংলাদেশী। বাকিরা বিভিন্ন দেশের নাগরিক।  ইমিগ্রেশন বিভাগের প্রধান দাতুক খায়রুল দাজামি দাউদ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। মালয়েশিয়া সরকারের দেওয়া সুযোগ নিয়ে ইতিমধ্যেই ব্যাক ফর গুড কমসুচিতে বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের ১ লাখ ৯০ হাজার ৪ শত ৭১ জন দেশে ফিরে গেলেও এখনও সেদেশে অবৈধ অভিবাসী আটকে ব্যাপক অভিযান পরিচালনা করবে অভিবাসন বিভাগ। 

এদিকে মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তান শ্রি মহিউদ্দিন ইয়াছিন সাংবাদিকদের বলেন, আমরা অবৈধ অভিবাসীদের বিভিন্ন সুযোগ দেওয়ার কারনেই অবৈধ অভিবাসীদের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই আমরা আর কোন সুযোগ দিতে চাইনা। তিনি আরো বলেন, পাঁচটি রুপরেখার উপর ভিত্তি করেই মালয়েশিয়ায় জুড়ে অবৈধ অভিবাসী বিরোধী অভিযান পরিচালিত হবে। আর সেই অভিযানে যারা গ্রেফতার হবে তাদেরকে আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ নেবে সরকার। 

নিম্নে ৫ টি কৌশল পর্যায়ক্রমে দেয়া হলঃ-

(১) প্রয়োগকৃত অভিযান পদ্ধতি যা দেশব্যাপী অবৈধদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার ক্ষেত্রে বিভিন্ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নকে নির্দেশ করে।

(২) আইন প্রণয়ন ও প্রয়োগ নীতি যা নতুন আইনের খসড়া প্রণয়ন এবং অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে প্রয়োগের নীতিগুলির সমন্বয় সম্পর্কিত বাস্তবায়ন পরিকল্পনাকে নির্দেশ করে।

(৩) প্রবেশপথ এবং বর্ডার নিয়ন্ত্রণ কৌশল যা দেশের সীমানা এবং প্রবেশপথ গুলোর নিরাপত্তা নিয়ন্ত্রণ এবং পর্যবেক্ষণ কার্যক্রম সম্পর্কিত বাস্তবায়ন পরিকল্পনাকে নির্দেশ করে।

(৪) বিদেশি নাগরিকদের সাথে সম্পর্কিত নীতিগুলির সমন্বয় পরিকল্পনার আওতায় ব্যবস্থাপনা কৌশল নির্দেশ করে।

(৫) মিডিয়া এবং প্রচার কৌশল যা অবৈধদের বিষয়ে মিডিয়া কভারেজ, প্রচার ও সচেতনতা প্রোগ্রাম সম্পর্কিত পরিকল্পনাকে নির্দেশ করে।

তিনি আরো বলেন, মালয়েশিয়াতে অবৈধ অভিবাসী সমস্যা একটি জাতীয় সমস্যা যা এখনো সম্পূর্ণভাবে মোকাবেলা করা সম্ভব হয়নি।

এটা স্থানীয়দের মধ্যে ব্যাপক উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে যা শুধু জাতীয় ও সীমান্ত নিরাপত্তাকেই বিঘ্নিত করেনা বরং দেশের রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির উপর ব্যপক প্রভাব ফেলছে।স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে অবৈধ শ্রমিক বা অভিবাসীদের তাড়িয়ে দেয়ার কথা ঘোষণা করে একটি বিবৃতি দিয়েছেন।

উল্লেখ্য অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ হওয়ার জন্য মালয়েশিয়া সরকার ২০১৭ সালে সুযোগ দেয়। শেষ হয় ২০১৮ সালের ৩০ শে আগস্ট। ঐ বৈধ হওয়ার সুযোগ পেয়ে বহু বাংলাদেশি রেজিস্ট্রেশন করে প্রতারনার শিকার হয়। এর পর অবৈধ অভিবাসীদের জন্য সেদেশের সরকার ব্যাক ফর গুড কমসুচির ম্যাধমে দেশ ত্যাগের সুযোগ দেয়। যা শেষ হয়েছে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯। 

প্রতিক্রিয়া মন্তব্য শেয়ার