অনলাইনে ধেয়ে আসছে আতঙ্কের নতুন গেম 'মমো

শেখ সেকেন্দার আলী | নিজস্ব প্রতিবেদক : অগাস্ট ২, ২০১৮

এটি একটি অনলাইন গেম, যা হোয়াটস্যাঅ্যাপ মেসেঞ্জারের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ছে । ল্যাটিন আমেরিকায় ইতোমধ্যেই এর বিরুদ্ধে সতর্কতা জারী করা হয়েছে।

যদিও এর মধ্যেই এটি পৌঁছে গেছে এশিয়া, আফ্রিকা আর ইউরোপে। বিশেষজ্ঞরা একে তুলনা করছেন আলোচিত 'ব্লু হোয়েলে'র সাথে। বলেছেন ভয়াবহ এই খেলা নিয়ে যেতে পারে মারাত্মক পরিণতির দিকে।

তার নাম হলো মমো। সে দেখতে ভীতিকর। গায়ের চামড়া ফ্যাকাসে। চোখে অশুভ হাসি। এবং বাইরের দিকে প্রসারিত লাল লাল চোখ। হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে তার চেহারা বিখ্যাত হয়ে উঠেছে সারা পৃথিবীতে।হুট করে এটা আপনার কম্পিউটারের স্ক্রিনে ভেসে উঠতে পারে এবং গেমে অংশ নিতে প্রলুব্ধ করতে পারে।

কিন্তু সেটা করলেই আপনি বোকা বনে যাবেন।ল্যাটিন আমেরিকায় কর্তৃপক্ষ জনগণকে সতর্ক করে বলেছে এ গেম মেসেজের মাধ্যমে অন্যকে না দেয়ার জন্য কারণ তারা বলছে এই অনলাইন গেম কাউকে অনেক দুর নিয়ে যেতে পারে। মেক্সিকোর একটি পুলিশ ইউনিট যারা অনলাইন অপরাধ নিয়ে কাজ করে-তারা বলছে, "এটা শুরু হয়েছে ফেসবুকে। একদল লোক একে অন্যকে প্রলুব্ধ করে একটি অপরিচিত নাম্বারে কল দেয়ার জন্য। যদিও সেখানে একটি সতর্কতা দেয়া ছিলো"। মেক্সিকোর পুলিশ বলছে, "অনেক ব্যবহারকারী জানিয়েছে যে মমোতে বার্তা পাঠানোর পর সে সহিংস ছবি পাঠাবে। অনেকে হুমকিমূলক বার্তা পেয়েছেন বা ব্যক্তিগত তথ্যও ফাঁস হয়ে যাচ্ছে"।

মমো ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী - আমেরিকা থেকে ফ্রান্স কিংবা আর্জেন্টিনা থেকে নেপাল।স্পেনে পুলিশও এ ধরনের গেম উপেক্ষা করার পরামর্শ দিয়েছে নাগরিকদের।মেক্সিকোর মতো স্পেনও টুইটারে সচেতনতা তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে এবং লোকজনকে এ খেলায় অংশ নিতে নিরুৎসাহিত করার পদক্ষেপ নিয়েছে। হ্যাশট্যাগ ইগনোর ননসেন্স দিয়ে চলছে প্রচারণা, যাতে বলা হচ্ছে "ডোন্ট অ্যাড মমো টু ইওর কন্টাক্টস"। কিন্তু এতো সব সতর্কতা সত্ত্বেও এখনো বিভ্রান্তি রয়েছে যে আসলে মমো কী? কোথা থেকে এর সূচনা হলো?

তথ্য:

বিভাগ:

প্রকাশ: অগাস্ট ২, ২০১৮

প্রতিবেদক: শেখ সেকেন্দার আলী

পড়েছেন: 1621 জন

মন্তব্য: 0 টি