সর্বশেষ সংবাদ

  1. ময়মিনসিংহ জাতীয়তাবাদী ফোরাম কর্তৃক জিয়াউর রহমান এর ৮২তম জন্মদিন পালন।
  2. গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য অনুকরণীয় হতে পারে মালয়েশিয়া
  3. মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে ট্রাভেল পাস ইস্যুতে কড়াকড়ি! সক্রিয় দালালরা
  4. মালয়েশিয়ায় ওয়েসিস কলেজের সমাবর্তন অনুষ্ঠিত
  5. মালয়েশিয়া পেরাক রাজ্যের কান্তানে জিয়াউর রহমানের জন্ম বার্ষিকী পালিত
  6. মা-বাবা হারা এই শিশুদের পাশে থাকবে প্রবাসীরা
  7. চট্টগ্রামে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সম্মেলন সম্পন্ন
  8. রাজশাহীর মদীনাতুল উলুম মাদরাসা ছাত্রাবাসকে তিনতলায় উন্নীতকরণ
  9. দাগনভূইয়ায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাংগঠনিক সম্পাদককে হত্যা
  10. মালয়েশিয়ায় এশিয়ান টিভির বর্ষপূর্তি পালন
অসুস্থ মাকে ছাদ থেকে ফেলে হত্যা করলেন অধ্যাপক (ভিডিও)

অসুস্থ মাকে ছাদ থেকে ফেলে হত্যা করলেন অধ্যাপক (ভিডিও)

প্রবাসীর দিগন্ত ডেস্ক

নিজের মাকে ছাদ থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে হত্যা করেছেন এক অধ্যাপক। পরে মায়ের মৃত্যু দুর্ঘটনা বা আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করেন তিনি।

রাজকোট পুলিশ বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, জেরার মুখে ভেঙে পড়ে নিজের মাকে খুনের কথা স্বীকার করেন সন্দীপ নাথওয়ানি (৩৬) নামে ওই অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর। স্থানীয় একটি ফার্মেসি কলেজের শিক্ষক তিনি।

পুলিশ জানায়, ঘটনা গত বছর ২৯ সেপ্টেম্বরের। সন্দীপের মা জয়শ্রীবেন(৬৪) বেশ কিছুদিন অসুস্থ ছিলেন। তার মৃত্যুর পরে নাথওয়ানি পরিবার দাবি করে, মাথার অসুখে ভুগছিলেন বৃদ্ধা। ছাদে উঠে টাল সামলাতে না পেরে পড়ে যান। কিংবা আত্মহত্যাও করে থাকতে পারেন।

কিন্তু এক বেনামি চিঠিতে মোড় ঘুরে যায় তদন্তের। চিঠিতে নাথওয়ানিদের বাড়ির সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখার পরামর্শ ছিল।

এলাকার ডিসিপি করঞ্জরাজ বাঘেলা জানিয়েছেন, দেখা যাচ্ছে, সন্দীপই ধরে ধরে মাকে ছাদে নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু নামল একা। কিছুক্ষণ পরেই একজন ছুটে এসে তাকে বৃদ্ধার পড়ে যাওয়ার খবর দেন। সন্দীপ এমন ভান করছে যেন কিছুই জানে না।

পুলিশের দাবি, প্রথমে সন্দীপ খুনের কথা কিছুতেই স্বীকার করেননি।

জানিয়েছিলেন, মা প্রার্থনা করবেন, তাই তিনি তাকে ছাদে নিয়ে গিয়েছিলেন। মা তাকে পানি আনতে বলায় নিচে নামেন তিনি। তাই তার পড়ে যাওয়ার কথা জানতেই পারেনি। কিন্তু সাক্ষ্য-প্রমাণ সবই ধীরে ধীরে সন্দীপের বিরুদ্ধে যেতে থাকে।

ছাদ থেকে তিনি মায়ের জুতো পরে সেদিন কেন নেমেছিলেন, তার উত্তর দিতে পারেননি সন্দীপ।

বাঘেলার কথায়, ‘বৃদ্ধা কিছুদিন ধরে মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণের সমস্যায় ভুগছিলেন। শৌচালয় যেতেও সাহায্যের প্রয়োজন হচ্ছিল। সবদিক খতিয়ে দেখে আমাদের সন্দেহ বাড়ে।’

বাঘেলা জানান, জেরার মুখে ভেঙে পড়েন সন্দীপ। বলেন, মায়ের অসুখ নিয়ে তিনি ও তার স্ত্রী তিতিবিরক্ত হয়ে পড়ছিলেন। ছোট বোনের বিয়ে দেওয়া নিয়েও পরিবারে অশান্তি লেগেছিল। তাই নিজের মাকে তিনিই ধাক্কা দিয়ে মেরে ফেলেন।

খুনের মামলায় সন্দীপকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সূত্র: আনন্দবাজার।